সাতকানিয়ায় কুপিয়ে শিশু গুলি করে যুবক হত্যা

সাতকানিয়ায় কুপিয়ে শিশু গুলি করে যুবক হত্যা, ১৬ ইউনিয়নে গুলিবিদ্ধসহ ৫০ জনের

বেশি আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে এক পুলিশ সদস্যও রয়েছেন। এ ছাড়া ময়মনসিংহের

ঈশ্বরগঞ্জের মগটুলা ইউনিয়নের নাউড়ি গ্রামে পুলিশের শটগানের গুলিতে দুই শিশুসহ ১৫ জন বিদ্ধ হয়েছে।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ distonews.com

সাতকানিয়ায় কুপিয়ে শিশু গুলি করে যুবক হত্যা

একই উপজেলার দুটি ইউনিয়নে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের

চরপার্বতী ইউনিয়নের দাসেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রবেশমুখে দুপুরে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা।

রংপুরের মিঠাপুকুরের ভাংনী ইউনিয়নে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর তিন

সমর্থককে আটক করেছে পুলিশ। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নে পরিহলপাড়া

কেন্দ্রের পাশ থেকে বিকেলে চারটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার এবং পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নে জাল

ভোট দেওয়ার অভিযোগে চার তরুণকে আটক করেছে পুলিশ। সাতকানিয়ার নলুয়া ইউনিয়নের

দক্ষিণ মরফলা গ্রামে ভোটকেন্দ্রের বাইরে সকাল

সাড়ে ১১টার দিকে হামলায় নিহত হয় মো. তাসিফ (১৩)। সে স্থানীয় রিকশাচালক জসিম উদ্দিনের ছেলে

এবং আরএমএন উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। অন্যজন আবদুস শুক্কুর (৩৫) নিহত হন

পশ্চিম বাজালিয়া গ্রামে। তিনি সিলেটের বাসিন্দা। তবে বাস করেন চট্টগ্রাম মহানগরের পাঁচলাইশ থানার

ষোলকবহর এলাকায়। ভোটকে কেন্দ্র করে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে বাজালিয়ায় এসেছিলেন তিনি।

শিশু তাসিফের মৃত্যুর বিষয়ে প্রতিবেশী চাচা ও সদস্য (মেম্বার) পদপ্রার্থী মিজানুর রহমান দাবি করেন,

নৌকার প্রার্থী লিয়াকত আলীর পক্ষের বহিরাগত লোকজন কেন্দ্রের বাইরে থাকা ভোটারদের এলোপাতাড়ি কোপায়।

এ সময় গুরুতর আহত হয় তাসিফ পরে তাকে

দোহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মিজানুর দাবি করেন,

নৌকার পক্ষের লোকজন কেন্দ্র দখল করতে এসে ভোটারদের ওপর হামলা চালায়। তাসিফ মেম্বার পদপ্রার্থী চাচার ভোট দেখতে কেন্দ্রে গিয়েছিল।

মিজানুরের বক্তব্য সঠিক নয় দাবি করে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী লিয়াকত আলী বলেন, ‘মেম্বার প্রার্থীদের মধ্যেই মূলত সমস্যা ছিল। সেখানেই কোপানের ঘটনা ঘটে। নিহত শিশুর গলায় নৌকা প্রতীকের কার্ড ছিল। সে আমার সমর্থক। ’

বাজালিয়ায় আবদুস শুক্কুর নিহত হওয়ার ঘটনায় নৌকার চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী তাপস দত্ত বলেন, ‘আমার সমর্থকদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ চৌধুরীর সমর্থকরা।

সাতকানিয়ায় কুপিয়ে শিশু গুলি করে যুবক হত্যা

এই সময় শুক্কুরের মৃত্যু হয়েছে। ’ তবে শহিদুল্লাহ চৌধুরী দাবি করেন, ‘তাপস দত্ত কেন্দ্র দখল করতে বহিরাগত লোকজন এনেছিলেন। কেন্দ্র দখল করতে গিয়ে একপক্ষ অন্য পক্ষকে না চিনে গুলি চালিয়েছে। ফলে তাপস দত্তের দুই গ্রুপের মধ্যে গুলির ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে। ’

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল সাড়ে ৯টায় বাজালিয়ার বড়দুয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটারের দীর্ঘ সারি। হঠাৎ সেখানে একদল সশস্ত্র যুবক এসে গুলি চালাতে শুরু করে। তাদের গলায় ছিল নৌকা প্রতীকের কার্ড।

Leave a Reply

Your email address will not be published.