বিপিএল ইতিহাসের প্রথম টেম্পারিং বিতর্ক

বিপিএল ইতিহাসের প্রথম টেম্পারিং বিতর্ক,  ফিক্সিং বিতর্ক থেকে শুরু করে অব্যবস্থাপনা ও টুর্নামেন্ট

শুরুর পর নিয়ম বদলানো- কী হয়নি বিপিএলে! তবে এত দিন যে কালি আসরের গায়ে লাগেনি কখনোই,

সেটি এবার লাগল বিপিএল ইতিহাসের সবচেয়ে অভিজ্ঞ বিদেশি ক্রিকেটার রবি বোপারার জন্য।

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ distonews.com

বিপিএল ইতিহাসের প্রথম টেম্পারিং বিতর্ক

সিলেট সানরাইজার্সের এই ইংলিশ অলরাউন্ডার নেতৃত্ব পাওয়ার পর প্রথম ম্যাচেই বল টেম্পারিং করে

হাতেনাতে ধৃত হলেন এর শাস্তিও হলো সঙ্গে সঙ্গেই। খুলনা টাইগার্সের পক্ষে পেনাল্টি দেওয়া হলো ৫ রান।

বিপিএলের আট আসর মিলিয়ে বল বিকৃত করে কারো ধরা খাওয়া এবং শাস্তি পাওয়ার এটিই প্রথম ঘটনা।

এবারের বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্বে মেহেদী হাসান মিরাজকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া নিয়ে কম বিতর্কের মুখে

পড়েনি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সিলেট পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মোসাদ্দেক হোসেনের জায়গায় সানরাইজার্সের

অধিনায়কত্ব বোপারাকে দেওয়া নিয়েও প্রশ্নের অবকাশ

আছে যথেষ্টই। কারণ আগের ম্যাচেই একাদশ থেকে বাদ পড়েছিলেন ২০১৩ সাল থেকে বিপিএল খেলে আসা এই ক্রিকেটার।

বিদেশিদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬৬ ম্যাচ খেলা বোপারা টানা ৪ ম্যাচে বাজে পারফরম করার পর একাদশে জায়গা হারিয়েছিলেন। ফিরলেন কিনা অধিনায়ক হিসেবেই! ফিরেই টেম্পারিং বিতর্কে নিজেকে যেমন জড়ালেন, তেমনি দলকেও। টস জিতে সিলেট বোলিং নেওয়ার পর নবম ওভারে প্রথম আক্রমণে আসেন বোপারা।

এ ছাড়া তাহিরপুর সদর ইউনিয়নে জেলা বিএনপির

যুগ্ম সম্পাদক ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী জুনাব আলী, দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সভাপতি ঢোল প্রতীকের প্রার্থী আলী আহমদ মুরাদ, উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নে উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি চশমা প্রতীকের প্রার্থী আলী হায়দার নির্বাচিত হয়েছেন।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, ‘ভোট উৎসবে জনমত প্রতিফলিত হয়েছে। নৌকার পরাজয়ের কারণ দলীয় সভায় বসে বিশ্লেষণ করা হবে।

বিপিএল ইতিহাসের প্রথম টেম্পারিং বিতর্ক

ওই ওভারের তৃতীয় বল করার পরপরই মাঠের দুই আম্পায়ার তাঁর কাছ থেকে বল চেয়ে নেন। টিভি পর্দায়ও স্পষ্ট দেখা যায়, বাঁ হাত দিয়ে আড়াল করে ডান হাতের নখ দিয়ে বল খুঁটছেন বোপারা। আম্পায়াররাও পরীক্ষা করে পান বল বিকৃত করার প্রমাণ। তাই বল তো তাঁরা বদলে ফেলেনই, শাস্তি হিসেবে খুলনার স্কোরে ৫ রানও যোগ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.