বাবার জন্য পূজা শেষে ফিরছিলেন তারা

বাবার জন্য পূজা শেষে ফিরছিলেন তারা, কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় চার ভাই নিহত হয়েছেন।

এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুই ভাই ও এক বোন। জানা গেছে, নিহতরা সবাই মালুমঘাটে পূজা শেষে মহাসড়ক পার হওয়ার সময় দুর্ঘটনার

কবলে পড়েন।মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ডুলাহাজারা মালুমঘাট খ্রিস্টান মেমোরিয়াল হাসপাতালের পাশে

হাসিনাপাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।মৃতদের নাম অনুপম সুশীল (48), নিরুপম সুশীল

আরও খবর পেতে ভিজিট করুউঃ distonews.com

বাবার জন্য পূজা শেষে ফিরছিলেন তারা

(45), দীপক সুশীল (40) এবং চম্পক সুশীল (30)৷আহতরা হলেন- শরণ সুশীল, রক্কিত সুশীল, প্লাবন ও হীরা সুশীল। হতাহতরা সবাই

উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মৃত সুরেশ চন্দ্র সুশীলের সন্তান।ডুলহাজারা ইউপি চেয়ারম্যান হাসানুল ইসলাম আদর

জানান, নিহতের বাবা সুরেশ ১০ দিন আগে মারা গেছেন। এ কারণে সনাতন ধর্মানুসারে সুরেশের সাত ছেলে ও এক মেয়ে সকালে হাসিনাপাগড়ার তিন

রাস্তার স্থানীয় মন্দিরে শেভিং কাজ শেষ করতে যান।শেভিং করে মন্দির থেকে বাড়ি ফেরার পথে দুর্ঘটনাটি ঘটে। তাদের দাফনের যাবতীয় ব্যবস্থা

ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে করা হচ্ছে।কক্সবাজারের

চকরিয়ায় মালুমঘাট হাইওয়ে থানার ইনচার্জ পরিদর্শক সাফায়েত হোসেন জানান, পারিবারিক পূজার জন্য চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক

পার হওয়ার সময় দ্রুতগতির কক্সবাজারগামী একটি পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই চার ভাই নিহত হয়। . . বাকি চারজনের অবস্থাও

আশঙ্কাজনক। তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।দৈনিক যুগান্তরের২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কেক

কাটা, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।মঙ্গলবার বিকেলে শরীয়তপুর পাবলিক লাইব্রেরিতে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন

করা হয়।সম্মেলনে বক্তারা বলেন, যুগান্তরের স্বপ্নদ্রষ্টা নুরুল ইসলাম

শুধু একজন সফল ব্যবসায়ীই ছিলেন না, দেশের উন্নয়নের অংশীদারও ছিলেন। দেশকে ভালোবেসে যুদ্ধে অংশ নিলেও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী

হয়েও দেশের স্বার্থে অর্থ পাচার করেননি। তার প্রতিষ্ঠিত যুগান্তর পত্রিকা দেশের পাঠকদের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়েছে।তারা আরও বলেন

, যুগান্তর কখনো অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেনি। সত্যের মুখোমুখি হয় প্রতিদিন। যুগান্তর সবসময় আপোষহীনভাবে চলবে।আলোচনা সভায়

সভাপতিত্ব করেন দৈনিক যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি কে এম রায়হান কবির। মিয়া, একুশে টেলিভিশন ও দৈনিক জনকণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি আবুল

বাবার জন্য পূজা শেষে ফিরছিলেন তারা

বাশার, এশিয়ান টিভির জেলা প্রতিনিধি কাজী নাসির, স্বজন সম্বেষের সাধারণ সম্পাদক কবি খান মেহেদী মিজান প্রমুখ।এছাড়াও উপস্থিত

ছিলেন সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট এমদাদ হোসেন, কবি অ্যাডভোকেট রাশিদা মির্জা, আবুল হোসেন আনসার (গুলু), নুর-ই-আলম, শাহ

আলম, সহকারী শিক্ষক, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পালং তুলসা, মিসেস নুরুন নাহার (মিনু), শিক্ষক মো. মো., কার্তিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের

মিজানুর রহমান মোস্তফা, নাসির আহমেদ আলী, মো: জামাল হোসেন, নুরুল ইসলাম তনু, সাইফুল চৌকিদার প্রমুখ।

দোয়া ও মানাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা মুফতি নাসির উদ্দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.